জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীর ক্ষণগণনা
৩৮দিন
:
০৮ঘণ্টা
:
০২মিনিট
:
৩৬সেকেন্ড
শান্তির প্রস্তাব নিয়ে প্রতিপক্ষের বাড়িতে বসুরহাট পৌর মেয়র সত্যবচন আবদুল কাদের মির্জা - Daily Noakhali Somoy

শান্তির প্রস্তাব নিয়ে প্রতিপক্ষের বাড়িতে বসুরহাট পৌর মেয়র সত্যবচন আবদুল কাদের মির্জা

1 min read
913 Views

মাহমুদ খাঁন, দৈনিক নোয়াখালী সময় ডট কম: নোয়াখালীর বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আব্দুল কাদের মির্জা প্রতিপক্ষ উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান আজম পাশা চৌধুরী রুমেলের বাড়িতে (সাবেক এমপি আবু নাছের চৌধুরী বাড়ি) গিয়ে শান্তির প্রস্তাব দিয়েছেন। শনিবার (২৪ জুলাই) সকাল সাড়ে ৭টায় তিনি সেখানে যান। আজম পাশা চৌধুরী রুমেলের ছোট ভাই জেলা পরিষদের সদস্য আক্রাম উদ্দিন সবুজ চৌধুরী বলেন, ‘ঈদ উপলক্ষে বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা ঈদ পরবর্তী সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে আমাদের বাড়িতে আসেন। এ সময় তিনি কোম্পানীগঞ্জের দীর্ঘ সাত মাসের রাজনৈতিক সহিংসতা বন্ধ করে শান্তি স্থাপনের প্রশ্নে একসঙ্গে কাজ করার আহ্বান জানান।’এ বিষয়ে মেয়র আবদুল কাদের মির্জা বলেন, ‘জেলা পরিষদের সদস্য আক্রাম উদ্দিন সবুজের বাড়িতে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করতে গিয়েছি। সেখানে উপজেলা ভাইস-চেয়ারম্যান আজম পাশা চৌধুরী রুমেল, জেলা পরিষদের সদস্য আক্রাম উদ্দিন সবুজসহ উপস্থিত সবাইকে কোম্পানীগঞ্জে শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে আহ্বান জানিয়েছি।’তবে আজম পাশা চৌধুরী রুমেল বলেন, ‘আগামী মঙ্গলবার বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আব্দুল কাদের মির্জা যুক্তরাষ্ট্রে সফরে যাওয়ার কথা বলেছেন। এ উপলক্ষে সকাল সাড়ে ৭টায় তিনি আকস্মিকভাবে আমাদের বাড়িতে আসেন। এ সময় তিনি সবার কাছে দোয়া চেয়ে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন এবং ভেদাভেদ ভুলে কোম্পানীগঞ্জে শান্তি ফিরিয়ে আনতে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানান।’তিনি আরও বলেন, ‘মেয়র তার কয়েকজন অনুসারী নিয়ে বাড়িতে এসেছেন। আমরা সামাজিক সৌজন্যতা দেখিয়েছি। কিন্তু আমাদের অনুসারীদের ছেড়ে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার প্রশ্নই আসে না। তবে এলাকার শান্তির প্রশ্নে আমাদের অনুসারী আওয়ামী লীগ ও সহযোগী অঙ্গ-সংগঠনের নেতাকর্মীদের সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। এতে আমাদের অনুসারী কেউ ভুল বুঝবেন না।’ উল্লেখ্য, গত ১৫ জুলাই বিকাল ৫টায় উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান ও যুবলীগ সভাপতি আজম পাশা চৌধুরী রুমেলের বাড়িতে হামলার অভিযোগ ওঠে। এ সময় গুলি করা হয় এবং ককটেল বিস্ফোরণ ঘটে। এ ঘটনায় কাদের মির্জার অনুসারীদের বিরুদ্ধে পিটিয়ে ও কুপিয়ে ঘরের আসবাবপত্র ভাঙচুর করার অভিযোগ করা হয়। এতে তিন জন গুলিবিদ্ধসহ ছয় জন আহত হন।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *